banglanewspaper

২০১৮ সালে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে অভিনেত্রী কাজী নওশাবা আহমেদের বিরুদ্ধে মামলার কার্যক্রম ৬ মাসের জন্য স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে ওই মামলা কেন বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন আদালত।

বুধবার (২০ নভেম্বর) বিচারপতি মো.রেজাউল হক ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আমিনুর রহমান চৌধুরী টিকু।

জ্যোর্তিময় বড়ুয়া সাংবাদিকদের বলেন, তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলাটি দায়ের করা হয়েছে ২০১৮ সালের ৫ আগস্ট । অথচ তথ্য প্রযুক্তি আইন বিলুপ্ত হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ কার্যককর হয় ওই সালের ৮ অক্টোবর। কিন্তু নতুন আইনের ৬১ ধারা মতে তথ্য প্রযুক্তি আইনের কোনো মামলা বিচারাধীন থাকলে তা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনেও চলমান থাকবে।

কিন্তু এ মামলার চার্জশীট দেওয়া হয়ে ২০১৯ সালের ৩০ এপ্রিল। অভিযোগ আমলে নেওয়া হয়েছে ৩ সেপ্টেম্বর। তাই এ মামলার কার্যতক্রম অবৈধ। এ কারণে তা বাতিল চেয়ে আবেদনের পর আদালত ৬ মাসের স্থগিতাদেশ দিয়ে রুল জারি করেছেন।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন চলাকালে ২০১৮ সালের ৪ আগস্ট ফেসবুক লাইভে গুজব সৃষ্টির অভিযোগে উত্তরা থেকে নওশাবা আহমেদকে আটক করে র‌্যাব। এর পরদিন ৫ আগস্ট র‌্যাব-১ এর কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম বাদী হয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় নওশাবার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। তারপর তথ্যপ্রযুক্তি মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।

একই বছরের ৫ আগস্ট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মাজহারুল হক তাকে চারদিনের রিমান্ডের আদেশ দেন। প্রথম দফায় রিমান্ড শেষে ১০ আগস্ট আবারও নওশাবাকে দুই দিনের পুলিশ রিমান্ডের আদেশ দেন একই অদালত।