banglanewspaper

সেনাবাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধভিক্ষুদের গণহত্যা, ধর্ষণ ও নানা পাশবিক নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচতে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য ছেড়েছেন লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গারা। এর মধ্যে প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গা প্রতিবেশী ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে আশ্রয় নিয়েছেন।

সম্প্রতি ভারত সরকার তাদেরকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছেন।

মিয়ানমারের মৃত্যুকূপে ফেরত পাঠানো হবে এই ভয়ে ও আতঙ্কে ভারত ছাড়ছে দেশটিতে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গারা। সম্প্রতি গত কয়েকদিনে ভারত থেকে পালিয়ে প্রায় ১ হাজার ৩০০ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। দেশটিতে এখনও প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গা বসবাস করছে বলে জানা গেছে।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. আবুল কালাম সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, গত ৪৭ দিনে ভারত থেকে পালিয়ে ৩০০ রোহিঙ্গা পরিবারের ১ হাজার ৩০০ জন সদস্য বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। ভারত থেকে স্বদেশে (মিয়ানমার) ফেরত পাঠানোর ভয়েই মূলত ভারত ছেড়ে বাংলাদেশে আসছে এসব রোহিঙ্গা।

তিনি আরও জানান, গত বছরের মে থেকে কিছু কিছু রোহিঙ্গা ভারত থেকে আসছিল। এর মধ্যে গত ডিসেম্বরের শুরুর দিক থেকে গত বুধবার (১৬ জানুয়ারি) পর্যন্ত ভারত থেকে পালিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ১ হাজার ৩০০ রোহিঙ্গা এসেছে। কক্সবাজারের উখিয়ার অন্তর্বর্তীকালীন ট্রানজিট পয়েন্টের আশ্রয়শিবিরে জাতিসংঘের সংস্থা ইউএনএইচসিআরের তত্ত্বাবধানে তাদের রাখা হয়েছে। তারা চিঠি দিয়ে বিষয়টি বাংলাদেশ সরকারকে অবহিত করছেন।

শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উখিয়ার কুতুপালং রাবার বাগানের অন্তর্বর্তীকালীন আশ্রয়শিবিরে আসা রোহিঙ্গাদের সবার কাছে ইউএনএইচসিআর ভারত শাখার কার্ড আছে। কার্ডে তাদের শরণার্থী নম্বরও রয়েছে। ভারতে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের একটি অংশকে দুই দফায় স্বদেশে ফেরত পাঠায় ভারত সরকার।

ভারত থেকে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে টেকনাফের হোয়াইক্যং পুঠিবনিয়া শিবিরে আশ্রয় নেওয়া পাঁচ সদস্যের একটি রোহিঙ্গা পরিবারের কর্তা নুর আলম ও তার স্ত্রী সানজিদা বেগম বলেন, ‘তারা ১০-১২ বছর আগে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে ভারতের জম্মু-কাশ্মীরের কেরাইনটেলায় ছিলেন। সম্প্রতি ভারত কিছুসংখ্যক রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠায়। ফলে সেখানকার রোহিঙ্গারা আতঙ্কে ভারত ছেড়ে বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসছে।’

এই দম্পতি বলেন, ‘রাখাইনে তাদের ফিরে যাওয়ার মতো পরিবেশ সৃষ্টি হয়নি। সেখানে সেনাবাহিনীর সঙ্গে আরাকান আর্মির (বিচ্ছিন্নতাবাদী রাখাইন বৌদ্ধদের সংগঠন) সংঘাত চলছে বলে জেনেছেন। এ অবস্থায় দেশে ফেরত পাঠানো হবে—এই ভয়ে বাধ্য হয়ে তারা বাংলাদেশে এসেছেন।’

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন বলেন, ‘বর্তমানে বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের আটক করে পুলিশ কক্সবাজারে পাঠাচ্ছে। পরে রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবিরে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের কাছে তাদের তুলে দেয়া হচ্ছে।’

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও উগ্রপন্থী রাখাইনদের নিষ্ঠুর নির্যাতনের মুখে রাখাইন থেকে বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশ ও ভারতে আশ্রয় নিয়েছে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গারা। সর্বশেষ ২০১৭ সালের আগস্টের পর ওই রাজ্য থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা নারী–পুরুষ। আগে পালিয়ে আসাসহ বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার সংখ্যা এখন ১১ লাখের বেশি।