banglanewspaper

ঘরের মাঠেতে নিজেদের প্রথম ম্যাচ হারলেও দ্বিতীয় ম্যাচে দুর্দান্ত ভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে সিলেট সিক্সার্স। এই দুই ম্যাচে ছিলেন না অলরাউন্ডার নাসির হোসেন, সেখানের সামনের ম্যাচগুলোতেও থাকবেন না গত আসরের দলটির অধিনায়ক, কেননা তাকে সিলেটে দলের সঙ্গেই নেয়া হয়নি। অথচ এই নাসির হোসেন অধিনায়কত্বই প্রশংসিত হয়েছিল গতবার।

চোটের কারণে গত বছরের বেশিরভাগ সময় নাসিরকে থাকতে হয়েছে মাঠের বাইরে। ষষ্ঠ বিপিএল দিয়ে ফিরেছেন মাঠে, যদিও দলে সুযোগ পাচ্ছিলেন না শুরুতে। পুরো দল সিলেটে শিফট হলেও নাসির এখন ঢাকা। সিলেট সিক্সার্স কর্তৃপক্ষের দাবি, ফর্মের সাথে লড়াই করা ক্রিকেটারকে কিছুটা সময় দিতেই এমন সিদ্ধান্ত। তবে ক্রিকেট পাড়ায় চাউর হয়েছে অন্য খবর। নাসির নাকি আবারও বিতর্কিত হয়েছেন ঝামেলা পাকিয়ে!

নাসির বরাবরই বিতর্কিত। বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘ব্যাড বয়’ খ্যাতি যে কয়জন ক্রিকেটারের রয়েছে, তাদেরই একজন নাসির। ইতিপূর্বে একাধিক ঝামেলায় নিজেকে জড়িয়ে বিভিন্ন ধরনের শাস্তি ভোগ করেছেন এই ক্রিকেটার। এবার নাকি সিলেট সিক্সার্সের অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের সাথেই দ্বন্দ্ব পাকিয়েছেন নাসির। প্রসঙ্গত, অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এই সহ-অধিনায়কের কারণেই এবার অধিনায়কত্ব হারাতে হয়েছে নাসিরকে।

দুটি ম্যাচ খেলে ভালো করতে না পারা নাসির দল থেকে বাদ পড়লে চার ম্যাচেও নিজেকে প্রমাণ করতে না পারা আরেক ‘ব্যাড বয়’ সাব্বির রহমান, কিংবা আইকন ক্রিকেটার লিটন দাস কেন একাদশ থেকে বাদ পড়ছেন না সেই প্রশ্নই জন্ম দিচ্ছে আরেকটি প্রশ্নের- তবে কি অন্য কোনো কারণ আছে নাসিরের দলচ্যুত হওয়ার পেছনে? দেশের শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যম দ্যা ডেইলি স্টারের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সিলেট সিক্সার্সের দলীয় এক সূত্র নাকি জানিয়েছে, অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের সাথে বিবাদ হয়েছে নাসিরের। আর এর শাস্তি হিসেবেই তাকে সিলেট পর্বে দলের সঙ্গে রাখা হয়নি।

যদিও এমন কিছু কেউ স্বীকার করছেন না সরাসরি। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে একপেশে ম্যাচ হারার পর অলক কাপালিকে এ নিয়ে প্রশ্ন করা হলে এই ছিল তার উত্তর- ‘নাসির নিজে থেকেই বিশ্রাম নিয়েছে, ঢাকায় যোগ দেবে।’