banglanewspaper

সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজায় এক মাকে তার ১৭ বছর বয়সী মেয়ের কুমারিত্ব বিক্রির দায়ে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ওই নারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি পাঁচ লাখ দিরহাম ও একটি স্বর্ণের হারের বিনিময়ে তার মেয়ের কুমারিত্ব বিক্রি করে অচেনা এক পুরুষের হাতে তুলে দেন। তাছাড়া মেয়েকে নাকি জোরপূর্বক পতিতাবৃত্তিতে যেতে বাধ্য করেন তিনি।

আমিরাতভিত্তিক সংবাদমাধ্যম খালিজ টাইমসের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, শারজার একটি আদালত ওই নারীর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ প্রমাণিত হলে এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন। তাছাড়া তাকে এমন অপরাধে সহযোগিতা করার দায়ে আরও তিন নারীকে এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ওই নারী যখন তার মেয়েকে বিক্রি করে নগদ টাকা বুঝে নিচ্ছিলেন ঠিক তখনই তাকে হাতেনাতে আটক করে পুলিশ। পরে পুলিশ বাদী হয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা করে হাজতে পাঠায়। বেশ কিছুদিনে ধরে এই মামলা বিচারাধীন থাকার পর অবেশেষে এ রায় দিলেন আদালত।

মায়ের এমন অপকর্মের শিকার মেয়ে আদলতকে বলেন, তার মা তাকে জোরপূর্বক হোটেলে গিয়ে দেহ ব্যবসা করতে বাধ্য করেন। তাছাড়া এক ব্যক্তির কাছে নাকি তাকে অর্থের বিনিময়ে যে হস্তান্তর করা হেয় তার সত্যতাও নিশ্চি করেন তিনি।

পুলিশের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, গোপন খবরের ভিত্তিতে ওই হোটেল পুলিশের একটি দল নিয়ে অভিযানে চালান তিনি। ঘটনাস্থল থেকে হাতেনাতে ওই নারীকে আটক করেন। পুলিশের আরও একজন সদস্য বলেন, ভূক্তভোগী ওই মেয়ের মা আর কয়েকজন নারীর সহযোগিতা নিয়ে তাকে নানাভাবে বিভিন্ন অপকর্ম করতে বাধ্য করে আসছিলেন।