banglanewspaper

প্রাথমিক পর্যায়ে তথ্য ও যোগাযোগ বিষয়টি খুব অল্প সময়ের মধ্যে বাধ্যতামূলক করা হবে বলে জানিয়েছেন ডাক, টেলিযােগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে শনিবার ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লব : আমরা কি প্রস্তুত?’ শীর্ষক এক আলোচনায় টেলিযোগাযোগমন্ত্রী প্রাথমিকের শিক্ষার্থীদের তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ের সঙ্গে পরিচিত করানোর গুরুত্ব তুলে ধরে এ কথা বলেন।

মোস্তাফা জব্বার বলেন, দেশের শিক্ষা পদ্ধতিকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার উপযোগী করতে হলে অবশ্যই প্রাথমিক পর্যায় থেকে তথ্যপ্রযুক্তি (আইসিটি) সম্পর্কে শিক্ষার্থীদেরকে ধারণা পেতে হবে।

অনেক প্রচেষ্টার পর ২০১২ সালে সরকার ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টম শ্রেণীতে আইসিটি বিষয়টি বাধ্যতামূলক করে সরকার জানিয়ে বর্ষীয়ান এই তথ্যপ্রযুক্তিবিদ বলেন, পর্যায়ক্রমে তা ২০১৩ সালে নবম ও ২০১৪ সালে দশম শ্রেণিতে বাধ্যতামূলক করা হয়।

এর আগে ওই শ্রেণিগুলোতে পাঠ্যবইয়ের তালিকায় কম্পিউটার শিক্ষা নামে একটি ঐচ্ছিক বিষয় ছিল।

চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য অন্য অনেক ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এগিয়ে থাকলেও দক্ষ মানব সম্পদ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে দেশ অনেক পিছিয়ে আছে বলেও স্বীকার করেন তিনি।

টেলিযোগাযোগমন্ত্রী বলেন, দেশের মোট জনগণের ৬৫ ভাগ তরুণ। তাদেরকে চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের উপযোগী করে গড়ে তুলতে হলে শিক্ষা ব্যবস্থাকে আধুনিক করা ছাড়া আর কোনো বিকল্প সামনে নেই।

বিগত ১০ বছরে আইসিটিসহ বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশের সাফল্যের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় শিল্প বিপ্লব না পেলেও বাংলাদেশে চতুর্থ শিল্প বিপ্লব ভালোভাবে শুরু হয়েছে এবং সামনের দিনে এ ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দেবে।

একই সঙ্গে এ খাতের চ্যালেঞ্জ হিসেবে শিক্ষার বাইরে সাইবার নিরাপত্তা এবং কাগজবিহীন ব্যবস্থা গড়ে তোলার কথা উল্লেখ করেন তিনি।

ই-জেনারশনের আয়োজনে এ সেমিনার সঞ্চালনা করেন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান শামীম আহসান। আলোচনায় অংশ নেন অ্যাসোসিও সাবেক সভাপতি আব্দুল্লাহ এইচ কাফি, ঢাকা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ওসামা তাসির, এটুআই প্রকল্পের  পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান, ইনজেনারেশন ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন পরিচালক মুশফিকুর রহমান প্রমুখ।