banglanewspaper

এস,এম,আশরাফুল হক রুবেল, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: রাস্তার পাশে খাস জমিতে বাঁশ ও বেতের জিনিসপত্র তৈরী করে জীবিকা নির্বাহ করে জীবন যুদ্ধে কোন রকমে টিকে আছে কুড়িগ্রামে পাটনি সম্প্রদায়ের মানুষজন। নানা সংকটে দিনে দিনে কমে আসছে কুড়িগ্রামের পাটনি সম্প্রদায়ের পরিসর। জীবন যদ্ধে খেয়ে না খেয়ে কোন রকমে টিকে আছে তারা।একসময় নদীতে খেয়া ঘাটে মানুষ পারাপার করে জীবিকা নির্বাহ করত কুড়িগ্রামের পাটনি সম্প্রদায়। কিন্তু কালের পরিবর্তনে খেয়া ঘাটগুলো সরকারীভাবে ইজারা পদ্ধতি চালু হওয়ায় দিনে দিনে এ পেশা হারাতে হয়েছে তাদের। এখন অনেকের বাস্তুভিাটাটুকুও নেই। 

বর্তমানে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার কাঠালবাড়ী ইউনিয়নে কুড়িগ্রাম-রংপুর মহাসড়কের পাশে, কুড়িগ্রাম পেীরসভার ভেলাকোপায় বসবাস করছে অর্ধ শতাধিক পাটনি পরিবার। বাপ দাদার পেশা হারিয়ে বাঁশ ও বেতের তৈরী ডালি, কুলা, ডুলি, চালনিসহ বিভিন্ন গৃহস্থালী আসবাবপত্র তৈরী করে জীবিকা নির্বাহ করছেন তারা। বর্তমানে প্লাষ্টিক সামগ্রীর দাপটে চাহিদা কমে আসছে তাদের তৈরী পন্যের। ফলে পরিবার পরিজন নিয়ে কোন রকমে চলছে তাদের সংসার। 

সদর উপজেলার কাঠালবাড়ী ইউনিয়নের বাজার সংলগ্ন পাটনি সম্প্রদায়ের শ্রী রমেশ চন্দ্র অধিকারী বলেন, ২০ বছর আগে কাঠালবাড়ীতে পাটনি সম্প্রদায়ের আলাদা গ্রাম ছিল। সেখানে প্রায় ৪ শতাধিক লোকের বসবাস ছিল। তখন নদীর ঘাটে ইজারা হতো না। বাপ-দাদারা নদীর খেয়া ঘাটে নৌকা দিয়ে লোকপাড়া পাড়ের কাজ করে টাকা উপার্জন করে সংসার চালাতো। কিন্তু এখন তাদের সে পেশা কেড়ে নিয়েছে বিত্তবানরা। অন্য জাতের মানুষরা নৌকা দিয়ে লোক পাড়াপাড় করাচ্ছে। প্রতিযোগিতার যুগে মুল পেশায় টিকে থাকতে না পারায় পেশা বদলাতে হয়েছে তাদের। পেশা বদলিয়েও যান্ত্রিক যুগের সাথে তাল মেলোতে না পেরে পেশা ছেড়ে দিয়েছে অনেকেই। 

কুড়িগ্রাম বাজারে তৈরী ডালী,কুলা চালন বিক্রেতা আকবর আলী জানান,আগে হাটের দিন আসলে সব জিনিষ বিক্রি হয়া যাইত,অনেক মানুষ আগাম টাকা দিত জিনিষ নেবার জন্য আর এলা জিনিষ বিক্রি হয়না। এই ব্যবসা মনে হয় আর করা যাবার নয়।

পাটনি সম্প্রদায়ের গণেশ জানায়, এখন তাদের অবস্থা খুবই খারাপ।বাশ দিয়ে তৈরি করা জিনিষের চাহিদা আগের মত আর নেই, নিজেদের থাকার জায়গা নেই। পাশাপাশি তাদের সম্প্রদায়ের কারো মৃত্যু হলে লাশ সৎকারের জায়গা পাওয়া যায় না। আগের শ্বশান ঘাট ও কবরস্থান কলেজ তৈরি হয়েছে। মানুষের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় বাড়ি ঘরের সংখ্যাও বেড়ে গেছে। এজন্য এখন আর কেউ আমাদের লাশ পোড়ানো বা কবর দেয়ার জায়গা দেয় না। গত ২২ নভেম্বর আমার দাদী মারা গেলে তাকে পোড়ানো বা কবর দেয়ার জায়গা পাই নাই। ফলে আমাদের সম্প্রদায়ের সকলে মিলে লাশ নিয়ে রাস্তা অবরোধ করতে হয়েছে। পরে পুলিশ ও চেয়ারম্যান এসে লাশ পোড়ানোর ব্যবস্থা করে দিয়েছে। এখন আমরা সরকারের নিকট মৃত্যুর পর শেষ ঠিকানা টুকু দাবী করছি। সরকার যেন একটু শ্বশান বা কবর স্থানের জায়গা করে দেয়। 

একই পাড়ার করেন জানান, খেয়া ঘাটের ইজারা পদ্ধতি বিত্তবানদের হাতে চলে যাওয়ায় তাদের আদি পেশা মাঝি-মাল্লার কাজ ছেড়ে দিয়ে বউ বাচ্চা মিলে বাঁশ বেতের গৃহস্থালী পন্য তৈরী করে জীবিকা নির্বাহ করছেন তারা। কিন্তু এ পেশাও ভালো চলছে না তাদের। বউ বাচ্চা নিয়ে অতি কষ্টে দিন পার করতে হচ্ছে।

কাঠালবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রেজওয়ানুল কবির দুলাল জানান, পাটনি সম্প্রদায়ের মানুষের অত্যন্ত কষ্টে আছেন তাদের বিসিক এর মাধ্যমে তাদের পেশাকে টিকিয়ে রাখার জন্য ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এ দেশে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সম্প্রদায়গুলোর পেশায় পৃষ্ঠপোষকতা, তাদের থাকার জন্য নির্দিষ্ট স্থানের ব্যবস্থা করাসহ সম্প্রদায়গুলোকে টিকিয়ে রাখতে সকল ধরনের ব্যবস্থা নেবে সরকার এমনটাই প্রত্যাশা এ সম্প্রদায়ের মানুষগুলোর।