banglanewspaper

এম. ডি. ইউসুফ, স্বরূপকাঠী (পিরোজপুর) প্রতিনিধিঃ দৈনিক মানবজমিন পত্রিকার স্বরূপকাঠী প্রতিনিধি ও আনন্দ টিভির সংবাদকর্মী এ.এস.এম সায়েমের বিরুদ্ধে করা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারার মামলাটি খারিজ হয়েছে।

গত ১৩ডিসেম্বর অতিরিক্ত চীফ মেট্রোপলিটন মাজিস্ট্রেট আমলী আদালত ০১ বরিশাল বিচারক মারুফ আহমেদ এম,পি নং ১৮৭/২০১৮ মামলাটি দ্যা কোড অব ক্রিমিনাল প্রসিডিউর এর ২০৩ ধারার বিধান মতে খারিজ আদেশ করেন এবং ০১/০১/২০১৯ তারিখ আদেশের সইমোহর নকল প্রকাশ পায়।

মামলার নথি সূত্রে জানা গেছে, গত ১২ জুন বরিশাল মেইল ডট কম অনলাইন নিউজপোর্টালে "ধর্ষণ হলেও ৫ দিনে হয়নি মামলা; সংবাদ ঠেকাতে ইউপি চেয়ারম্যানের টাকার অফার" শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ পায়। অপর দিকে ১৩ জুন সায়েম তার ফেসবুকে সংবাদটি শেয়ার করেন। সংবাদে বাদীর বিরুদ্ধে মামলার দুই নং স্বাক্ষী ৬নং দৈহারী ইউপির চেয়ারম্যান প্রগতী মন্ডলের নিকট থেকে অর্থের বিনিময়ে ধর্ষণের ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে লেখা আছে।

এই বিষয়ে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ স্বরূপকাঠী শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ও স্বরূপকাঠী উপজেলা মহিলা যুবলীগের আহবায়ক নার্গিস জাহান বাদী হয়ে গত বছরের ২৬ জুন আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর বিচারক তদন্তের নির্দেশ দেন। তদন্ত রিপোর্টে পাওয়ার পর বাদী আদালতে হাজির হয়ে মামলাটি কোতোয়ালী মডেল থানায় এফ.আই.আর হিসেবে রেকর্ড করার জন্য দরখাস্তের মাধ্যমে আদেশ দানের প্রার্থনা করেন কিন্তু দরখাস্ত দাখিলের পর দুইটি তারিখ অতিবাহিত হলেও তিনি আদালতে সময় প্রার্থনা করেন।

১৩ ডিসেম্বর তৃতীয় বারের মত বাদী আদালতে সময় প্রার্থনা করলে মামলাটি চালিয়ে যাওয়া সংগত মর্মে প্রতিয়মান না হওয়ায় বিচারক মামলাটি খারিজ করেন।