banglanewspaper

ক্ষমতায় গেলে ২০২১ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে ফাইভ-জি চালু করবে আওয়ামী লীগ।

আজ মঙ্গলবার সকালে হোটেল সোনারগাঁওয়ের বলরুমে ইশতেহার প্রকাশ করছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নপূরণে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নিয়ে দলের ইশতেহার তুলে ধরেন।

ইশতেহারে বলা হয়েছে, ২০২১ থেকে ২০২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ফাইভ-জি চালু করা হবে। এ ছাড়াও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবোটিএক্স, বিগ ডাটা, ব্লক চেইন, আইওটি-সহ ভবিষ্যৎ প্রযুক্তির বিকাশ ঘটানো হবে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-২ এবং সাবমেরিন ক্যাবল-৩ স্থাপনের জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে।

ইশতেহারে উল্লেখ করা হয়েছে, পরবর্তী সময় সরকার গঠন করলে ই-পাসপোর্ট, ই-ভিসা চালু, শিক্ষাকে পর্যায়ক্রমে ডিজিটাল পদ্ধতিতে রূপান্তরের সর্বাত্মক পদক্ষেপ গ্রহণ ও আর্থিক খাতের লেনদেনকে ডিজিটাল করা হবে। এ ছাড়াও তথ্যপ্রযুক্তির সফটওয়্যার, সেবা ও ডিজিটাল যন্ত্রের রফতানি ৭ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করা হবে।

ইন্টারনেট ও মোবাইল ব্যবহারের মূল্য যুক্তিসংগত পর্যায়ে নামিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার বিষয়ে ইশতেহারে বলা হয়েছে, ক্ষমতায় গেলে বাংলাদেশকে সম্পূর্ণভাবে নিরক্ষরতার অভিশাপমুক্ত করা হবে। প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার শূন্যে নামিয়ে আনা হবে। গত এক দশকে প্রাথমিকে ঝরে পড়ার হার ২০ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে। অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত ঝরে পড়ার হার ৫ শতাংশে নামিয়ে আনা হবে। এ ছাড়াও শিক্ষক কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নিয়োগের একমাত্র মানদণ্ড হবে মেধা, যোগ্যতা এবং অভিজ্ঞতা।