banglanewspaper

বর্তমান সরকার গ্রাহকদের কাছে সহজে সরকারি সেবা পৌঁছানোর জন্য নানা উদ্যোগ গ্রহন করলেও তৃণমূল পর্যায়ে একটি অসাধুমহল নানা শর্তারোপ করে গ্রাহকদেরকে জিম্মি করে অনৈতিক পন্থায় নিজেদের পকেট ভারী করার কারনে সরকারের সে সদিচ্ছার প্রতিফলন মাঠ পর্যায়ে পৌঁছাচ্ছে না।

ফলে গ্রাহকদেরকে নিত্যনৈমত্তিকভাবে সরকারি সেবা সার্ভিস গ্যাস, বিদ্যুৎ, পানির বিল পরিশোধে নানা ভাবে হয়রানির সম্মুখীন হতে হচ্ছে। ভোক্তাদের স্বীকৃতি প্রতিনিধি হিসাবে ক্যাব থেকে বারংবার বিয়গুলি সরকারের সংস্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের কাছে তুলে ধরলেও অজ্ঞাত কারনে বিষয়টি সমাধানের চেয়ে সমস্যাগুলো অব্যাহত রেখে অবৈধ অর্থ আদায়ের তৎপরতা থেমে নাই। বিশেষ করে কর্নফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী (কেজিডিএল) বিগত ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ই স্থানীয় সবকটি দৈনিকে “অনলাইনে গ্যাসের বিল পরিশোধে গ্রাহক রেজিস্ট্রেশণ সংক্রান্ত” বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হয়।

বিজ্ঞাপনে আগামি ২০-১২-২০১৮ইং এর মধ্যে অনলাইন নিবন্ধনটি সম্পন্ন করতে বলা হয়েছে। যে দিন বিজ্ঞাপনটি প্রকাশিত হয় সে দিন থেকে সরকারি বন্ধ শুরু হয়ে ১৭ তারিখে সরকারি অফিসগুলি খুলবে। তাহলে এত অল্প সময়ে একজন গ্রাহক কিভাবে বিষয়টি সম্পন্ন করবেন? অন্যদিকে যারা অনলাইনে নিবন্ধন করতে গেছেন তাদেরকে যাবতীয় বকেয়া বিল পরিশোধ করে বিলের কপি সংযুক্ত করা, বিলের কাগজপত্রগুলি নিয়ে আসাসহ নানা শর্তারোপ করে অনলাইনে নিবন্ধন প্রক্রিয়াটি জঠিল করা হচ্ছে।

যার কারনে যারা অনলাইনে নিবন্ধন করতে পারে নি তারা বিল পরিশোধ করতে পারছে না। ফলে গ্রাহককে জরিমানা গুনতে হচ্ছে। আবার কেজিডিএল অফিসে অতিরিক্ত অর্থ প্রদান করলে শিল দিয়ে ব্যাংকে টাকা জমা দেবার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। যাতে করে গ্রাহক ভোগান্তি বাড়ছে, সহজে বিল পরিশোধের সহজ ব্যবস্থাটি জঠিল করে কিছু কর্মকর্তার পকেট ভারী করার উদ্যোগ চলমান থাকছে।

সরকারের বিল পরিশোধের সহজ পদ্ধতির ফল সাধারণ ভোক্তারা পাচ্ছে না। আবার এ সুযোগে কিছু অসাধু কর্মকর্তার পকেট ভারী করার রাস্তা সুগম হচ্ছে। এছাড়াও ব্যাংকগুলিতে বেলা ১ টার পরে বিল জমা না নেয়াসহ নির্ধারিত তারিখের পরে বিল গ্রহনে অনাগ্রহের কারনে প্রায়শঃ বিল পরিশোধে হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। অথচ মোবাইল ব্যাংকিংএ এ বিল ২৪ ঘন্টা পরিশোধ করা যায়, সেখানে নানা রকম শর্তদিয়ে ব্যাংকগুলি বিল নিচ্ছে না।

এ অবস্থায় কেজিডিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবরে প্রেরিত এক পত্রে ক্যাব চট্টগ্রাম অনলাইনে বিল পরিশোধে নিবন্ধনের সময় সীমা আরও ০১ মাস বাড়িয়ে দেয়া ও নিবন্ধন করতে হলে শুধুমাত্র বিল বইটি মালিকানা নিশ্চিত করার জন্য প্রদর্শনের বিধান রেখে যামেলা বিহীন ভাবে নিবন্ধন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করা, গ্যাস, পানি, বিদ্যুৎ বিল পরিশোধে ভোগান্তি নিরসনের দাবি জানিয়েছেন। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি