banglanewspaper

আমাদের দৈনন্দিন খাবারের তালিকায় থাকে পাখিটি। নানাভাবে রন্ধনযোগ্য সেই পাখি উপাদেয় মাংসের আধারও। হ্যা, সেই পাখিটি আমাদের চিরচেনা মুরগি। আর এই মুহুর্তে বিশ্বে জীবন্ত মুরগির সংখ্যা ২ হাজার তিনশ’ কোটিরও বেশি। তার মানে জীবন্ত প্রানীদের সংখ্যা বিচারে দুনিয়াটা মুরগিরই বলা যায়।

পৃথিবীতে মুরগির সংখ্যা কত- প্রশ্নটি হাস্যকর মনে হলেও এর উত্তর দিচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। যুক্তরাজ্যের লেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী ড. ক্যারিজ বেনেট মুরগি নিয়ে গবেষণা করেছেন।

তিনি জানাচ্ছেন, প্রাণীজগতে বিবর্তন ঘটে সাধারণত ১০ লাখ বছর ধরে। কিন্তু মুরগির ক্ষেত্রে এটি ঘটে অনেক কম সময়ে। আর এখন বিশ্বজুড়ে জীবন্ত মুরগি রয়েছে ২৩০০ কোটি।

গবেষণার পরিসংখ্যান দিয়ে তিনি বলেন, ‘কেবল ২০১৪ সালে বিশ্বে প্রায় ৬ হাজার ৬০০ কোটি মুরগি জবাই করা হয়েছে। সে তুলনায় মাংসের জন্য শুকর ১৫০ কোটি আর গরু-মহিষ-ভেড়া জবাই হয়েছে মাত্র ৩০ কোটি।’

‘কীভাবে আমাদের পরিবেশ বদলে যাচ্ছে, মুরগি তার একটি প্রতীক। এক সময় মুরগি ছিল জঙ্গলে। কিন্তু এখন জঙ্গলে মুরগি কমেছে। মানুষ খামারে মুরগি চাষ করছে।’

এই বিজ্ঞানী জানাচ্ছেন, মুরগির সংখ্যা বৃদ্ধির যে হার, সেটা বিশ্বের অন্য যে কোনো প্রজাতির পাখির ক্ষেত্রে কল্পনাও করা যাবে না। এক কথায় বলা যায়, মানুষ মুরগির দুনিয়ায় বসবাস করছে।

লন্ডনে একটি প্রত্নতাত্ত্বিক খননের সময় খুঁজে পাওয়া মুরগির হাড়ের গবেষণা করে ক্যারিজ জানান, মুরগির যে হাড় পাওয়া গেছে তা এখনকার মুরগির প্রজাতির চেয়ে একবারে ভিন্ন।

তার মতে, অনেক পরে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যখন প্রত্নতাত্ত্বিক খোঁড়াখুঁড়ি করবে, তখন মাটির নিচে তারা টিনের ক্যান, কাঁচের বোতল, প্লাস্টিকের টুকরো খুঁজে পাবে। আর সঙ্গে অবশ্যই পাবে মুরগির হাড্ডি।