banglanewspaper

পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরের ৩টি আসনে উৎসবমূখর পরিবেশে প্রতিক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পিরোজপুর জেলার ৩টি আসনে বৈধ প্রার্থী রয়েছেন ১৮ জন। এর মধ্যে পিরোজপুর-১ (সদর-নাজিরপুর-নেছারাবাদ) আসনে ৬ জন, পিরোজপুর-২ (কাউখালী-ভান্ডারিয়া-ইন্দুরকানি) আসনে ৫ জন এবং পিরোজপুর-৩ (মঠবাড়িয়া) আসনে ৭ জন বৈধ প্রার্থী রয়েছেন।

সোমবার দুপুরে প্রার্থীদের মাঝে প্রতিক বরাদ্দ দেন জেলা রিটানিং কর্মকর্তা ও পিরোজপুর জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন। 

পিরোজপুর-১ আসনে প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট শ ম রেজাউল করিম (নৌকা), ঐক্যফ্রন্টোর প্রার্থী যুদ্ধাপরাধ মামলায় আমরণ কারাদন্ডে দন্ডিত দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে শামীম সাঈদী (ধানের শীষ), বাম গণতান্ত্রিক জোট প্রার্থী সিপিবি নেতা ডা. তপন বসু (কাস্তে), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর হাফেজ মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ (হাতপাখা), জাতীয় পার্টি (এরশাদ) মো. নজরুল ইসলাম (লাঙ্গল) এবং ন্যাশনাল পিপলস্ পার্টি (এনপিপি) এর মেহেদী হাসান রনি (আম )।

পিরোজপুর-২ আসনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের প্রার্থী জাতীয় পার্টি (জেপি) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন মঞ্জু (বাইসাইকেল), বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মো. মোস্তাফিজুর রহমান (ধানের শীষ), বাম গণতান্ত্রিক জোটের সিপিবি নেতা আব্দুল হামিদ হাওলাদার (কাস্তে), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র আবুল কালাম আজাদ (হাতপাখা) ও বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ)র রেজাউল করিম গাজী (টেলিভিশন)।

পিরোজপুর-৩ (মঠবাড়িয়া) আসনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের  জাতীয় পার্টি (এরশাদ) এর কেন্দ্রীয় নেতা ডা. রুস্তুম আলী ফরাজি (লাঙ্গল), উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. রুহুল আমীন দুলাল, (ধানের শীষ), বাম গণতান্ত্রিক জোটের সিপিবি নেতা এডভোকেট দিলীপ কুমার পাইক (কাস্তে), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশর মাওলানা মো. সগীর হোসেন (হাতপাখা), খেলাফত আন্দোলন’র মোহাম্মদ আবদুল লতীফ সিরাজি (বটগাছ), স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সদ্য পদত্যাগকারী মঠবাড়িয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মো. আশরাফুর রহমান (আপেল) এবং স্বতন্ত্র  মঠবাড়িয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মো. রিয়াজ উদ্দিন (কলার ছড়া)।

এদিকে পিরোজপুর-১ (সদর-নাজিরপুর-স্বরুপকাঠী) আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী শ ম রেজাউল করিমকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দেয়ায় আনন্দ শোভাযাত্রা করেছে পিরোজপুর জেলা আওয়ামীলীগ। সোমবার সকালে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে এ প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। পরে পিরোজপুর বঙ্গবন্ধু চত্তর থেকে এক বর্ণ্যাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিন শেষে স্থানীয় টাউন ক্লাব মাঠে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকটে  শ. ম. রেজাউল করিম এবং পিরোজপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও পৌল মেয়র আলহাজ্ব মো: হাবিবুর রহমান মালেক সহ জেলা, উপজেলা, পৌর ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিকলীগ, কৃষকলীগেরে অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। 

পরে টাউন ক্লাব মাঠে স্বাধীনতা মঞ্চে এক পথসভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামীলীগ সমর্থীত প্রার্থী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক এ্যাডভোকটে  শ. ম. রেজাউল করিম এবং পিরোজপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও পৌল মেয়র আলহাজ্ব মো: হাবিবুর রহমান মালেক। 

এ সময় বক্তারা বলেন, বিজয়ের মাসে কোনো স্বাধীনতা বিরোধীরা ক্ষমতায় আসতে পারবে না । স্বাধীন বাংলার মানুষ তা মেনে নিবে না। আমরা একতাবদ্ধ থাকার মাধ্যমে আবারো নৌকাকে বিজয়ী করে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় আনবো। আপনারা নৌকা প্রতিকে ভোট প্রদান করবেন। আওয়ামীলীগ স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি। দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আওয়ামীলীগকে আবারো ক্ষমতায় আনতে হবে।

উল্লেখ্য, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পিরোজপুর জেলার ৩টি সংসদীয় আসনে ৩০ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। মনোনয়নপত্র বাছাই কালে ৫ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে ৯ ডিসেম্বর ৩ জন প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেন। এছাড়া বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট থেকে একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। কিন্তু পরবর্তীতে প্রার্থী চুড়ান্ত করে ধানের শীষ প্রতিক বরাদ্ধ দেয়া প্রার্থীই বৈধ প্রার্থী হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন। দাখিলকৃত অন্য প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র আপনা-আপনি বাতিল হয়ে গেছে বলে জানান জেলা রিটানিং কর্মকর্তা পিরোজপুর জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন।