banglanewspaper

ষাট বছর আগে মানুষের মহাকাশ যাত্রা শুরুর পর ১৭শর বেশি কৃত্রিম উপগ্রহ উড়েছে পৃথিবী থেকে, তার একটি এখন লাল-সবুজ রঙের।

অর্থনীতির অগ্রযাত্রার সঙ্গে সঙ্গে এবার বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি খাতে এগিয়ে যাওয়ার নজির হিসেবে শনিবার প্রথম প্রহরে মহাকাশ পানে রওনা হয় বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১।

২০১৭ সালের ইউনিয়ন অফ কনসার্নড সায়েন্টিস্টসের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, মহাকাশের কক্ষপথে ঘুরছে ১৭শ’র বেশি স্যাটেলাইট। 

স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১  উৎক্ষেপণের পর নিজ কক্ষপথে পরিচালিত হওয়ার পর সম্প্রচার যোগাযোগে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। প্রত্যন্ত এলাকায় ইন্টারনেট সেবা বিস্তৃত করতেও এর ভূমিকা থাকবে।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের অবস্থান ১১৯.১ ডিগ্রি পূর্ব দ্রাঘিমার কক্ষপথে। এর ফুটপ্রিন্ট বা কভারেজ হবে ইন্দোনেশিয়া থেকে তাজিকিস্তান পর্যন্ত বিস্তৃত।

শক্তিশালী কেইউ ও সি ব্যান্ডের মাধ্যমে এটি সবচেয়ে ভালো কাভার করবে পুরো বাংলাদেশ, সার্কভুক্ত দেশসমূহ, ফিলিপাইন এবং ইন্দোনেশিয়া।

আর্থ স্টেশন থেকে ৩৫ হাজার ৭৮৬ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে স্যাটেলাইটটির কক্ষপথে যেতে সময় লাগবে ৮-১১ দিন। আর পুরোপুরি কাজের জন্য প্রস্তুত হবে ৩ মাসের মধ্যে।

এরপর প্রথম ৩ বছর থ্যালাস অ্যালেনিয়ার সহায়তায় এটির দেখভাল করবে বাংলাদেশ। পরে পুরোপুরি বাংলাদেশি প্রকৌশলীদের হাতেই গাজীপুর ও রাঙামাটির বেতবুনিয়া আর্থ স্টেশন থেকে নিয়ন্ত্রিত হবে এটি।

৩.৭ টন ওজনের বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটটির ডিজাইন এবং তৈরি করেছে ফ্রান্সের কোম্পানি থ্যালাস অ্যালেনিয়া স্পেস। আর যে রকেট এটাকে মহাকাশে নিয়ে গেছে যুক্তরাষ্ট্রের স্পেসএক্স। উৎক্ষেপণ হয়েছে ফ্লোরিডার লঞ্চপ্যাড থেকে।